31, Oct-2020 || 02:02 pm
Home জেলা ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীদের উপকার আমাদের ভোলা উচিত নয়

ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীদের উপকার আমাদের ভোলা উচিত নয়

অর্পিতা সিনহা,বাঁকুড়া: বর্তমানে আমরা করোনার কারণে খুব খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। সমকালের এই পরিবেশ থেকে আমরা কবে যে মুক্তি পাব তা আমাদের কারুরই জানা নেই। এই পরিস্থিতিতে যখন সারা দেশে করোনা রোগে আক্রান্ত রুগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে তখন ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীরা নিজেদের প্রাণের মায়া ত্যাগ করে ও পরিবারের কথা চিন্তা না করে মানুষের সেবায় নিজেদের নিয়োজিত করেছেন। চিকিৎসা যে একটি মহৎ পেশা এই কথাকে সত্যে পরিণত করে তাঁরা অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলেছেন। শুধু করোনা রুগীদের সেবা করছেন তাই নয়, করোনা ছাড়াও অন্য যে সমস্ত রুগী রয়েছেন তাদের ও যথাসম্ভব চিকিৎসার করার চেষ্টা চালাচ্ছেন ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীরা মিলে। তাছাড়াও এই সময় যে সমস্ত রুগীরা বাইরে গিয়ে চিকিৎসা করাতে পারছেন না তাদের অনলাইনের মাধ্যমে ডাক্তাররা চিকিৎসা করছেন বা উপদেশ প্রদান করছেন। রোগীর মেডিকেল রিপোর্ট দেখা থেকে শুরু করে ভিডিও কনসালটেশনের মধ্যে দিয়ে হোয়াটস অ‍্যাপ বা ইমেলের প্রেসক্রিপশন প্রদান করে তাদের সেবা করার চেষ্টা চালাচ্ছেন । ডাক্তাররা তো তাঁদের অক্লান্ত পরিশ্রম দিয়ে আমাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন কিন্তু আমরা কি তাদের যথাযোগ্য সম্মান দিতে পারছি? না,তাঁদের এই নিঃস্বার্থ অবদান কে আমরা ঠিক মতো মূল‍্যায়ন করছি না।
প্রকৃতপক্ষে বলতে গেলে বলা যায় ডাক্তার ও রুগী এই দুইয়ের সম্পর্ক অতিসংবেদনশীল। ডাক্তার কে রুগী বা তার বাড়ির লোকজন দ্বিতীয় ভগবান রূপে চিহ্নিত করে। একজন রুগীর জীবনে সবচেয়ে অসহায় অবস্থায় ডাক্তার কি ভূমিকা পালন করতে পারে তা ভাষায় বর্ণনাতীত। শুধুমাত্র চিকিৎসা করে ওষুধ দিয়ে রোগ সারানোই নয়,একজন ডাক্তার মানসিক কাউন্সিলর হিসাবেও রুগীর পাশে এসে দাঁড়ান। এমন অনেক রুগী আছে যারা ডাক্তারের মুখের আশ্বাসেই ভালো হয়ে উঠেছে। কিন্তু যত দিন যাচ্ছে ডাক্তার ও রুগীর এই সম্পর্ক যেন ভাঙ্গা কাঁচের টুকরোর মতো হয়ে যাচ্ছে। কেউ কারো উপর বিশ্বাস রাখতে পারছে না। চরম বিপর্যয়ের মুখে দাঁড়িয়ে যে হাত খড়কুটোর মতো আঁকড়ে ধরতে চায় রুগী সেই হাতের উপর আর বিশ্বাস রাখতে পারছে না কিছু রুগী। তাই হঠাৎ করে কোনো রুগীর মৃত্যু হলে মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধান না করে রুগীর আত্মীয় স্বজন বলছে ভুল চিকিৎসা বা ডাক্তারের গাফিলতির কারণে তাদের রুগীর মৃত্যু হয়েছে। তাই রুগীর আত্মীয়স্বজন তাৎক্ষণিক ক্ষোভের বশবর্তী হয়ে ডাক্তারের ওপর হামলা চালাচ্ছে বা হাসপাতাল, নার্সিং হোম ভেঙে ফেলছে। হয়তো কিছু অসাধু ডাক্তার রয়েছেন যাঁরা পয়সার জন্য রুগীর সাথে খারাপ ব্যবহার করে থাকেন কিন্তু সেই অসাধু ডাক্তারের সংখ্যা খুবই নগণ্য । একজন মানুষ যেমন গোটা মানবজাতির পরিচয় হতে পারে না তেমনি একজন খারাপ ডাক্তার কে দিয়ে সমস্ত ডাক্তারের তুলনা করলে চলবে না।একজন রুগী যেমন আসে ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা করাতে তেমনি একজন ডাক্তার ও তো মানুষ তাই চিকিৎসকের প্রতি রুগীর আত্মীয় স্বজনের একটু সহানুভূতিশীল হওয়া প্রয়োজন। রুগীর মৃত্যুর আসল কারণ অনুসন্ধান করা একান্তভাবেই দরকার ।তাহলেই হয়তো ডাক্তার ও রুগীর মধ্যে আবার মেলবন্ধন ঘটবে। আজকের এই বির্পযয়ের দিনে যে সমস্ত ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীরা নিজের মৃত্যুকে উপেক্ষা করে আমাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন এই বির্পযয় কেটে গেলেও আমরা যেন তাঁদের পাশে থাকি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

কোজাগরী লক্ষ্মী পূর্ণিমা

অর্পিতা সিনহা,বাঁকুড়া:(৩০অক্টোবর,২০২০): ভারতবর্ষে বহু প্রাচীনকাল থেকেই লক্ষ্মী পূজার প্রচলন আছে । ঋক বৈদিক যুগে লক্ষীপূজার কোনও সরাসরি উল্লেখ না থাকলেও " শ্রী...

উৎসবের মরশুমে বাজারে সোফা ও বেডসেট আনল গোদরেজ ইন্টেরিও

হীরক মুখোপাধ্যায় (৩০ অক্টোবর '২০):- উৎসবের মরশুমে পশ্চিমবঙ্গের ক্রেতাদের জন্য বাজারে নতুন মনোলোভা সোফা ও বেডসেট আনল 'গোদরেজ ইন্টেরিও'।

মা তারার প্রতিষ্ঠা দিবস আজ

সৌগত মন্ডল,তারাপীঠ-বীরভূম: বীরভূমের তারাপীঠে শুক্লা চতুর্দশীতে আজ তারামায়ের আবির্ভাব তিথি উৎসব। ১৫৩ বছর পূর্বে বামাক্ষ্যাপা এই তারাপীঠেই তারা মায়ের সাধনায় সিদ্ধিলাভ পায়।...

সালিশি সভায় পাওনাদারকে কুপিয়ে খুন

প্রদীপ মজুমদার, নদীয়া: সালিশি সভায় পাওনাদারকে চাকু দিয়ে কুপিয়ে খুন। নাকাশিপাড়া থানার দোগাছি পঞ্চায়েতের ঘটনা। মৃত ব্যক্তির নাম আব্দার শেখ (৩৫)