29, Oct-2020 || 01:05 pm
Home কলকাতা দহননামা

দহননামা

রিতা মিস্ত্রী,কলকাতা:- পড়ছিলাম দেবাশিস আইচের “দহননামা”।১৯৮৯ সালের ভাগলপুর দাঙ্গার প্রেক্ষিতে একটি ভয়াবহ গণহত্যার কাহিনী।শুরু করার আগে মনে প্রশ্ন ছিল,এতদিন আগেকার লেখা(প্রথম প্রকাশ-১৯৯৩ সালে)এখন‌ও কি সমান প্রাসঙ্গিক?হঠাৎ ব‌ই আকারে পুনঃপ্রকাশ‌‌ই বা কেন?চলুন,এর উত্তর খোঁজার সামান্য চেষ্টা করি।

১৯৮৬ সালে বাবরি মসজিদের তালা খুলে ফেলা হয়।রামমন্দির বানানোর জন্য ইঁট পুজো,সারাদেশের গ্রামশহর থেকে মিছিল করে সেই ইঁট অযোধ্যায় পৌঁছনোর নাম হয় শিলামিছিল।১৯৮৯ এ ভাগলপুরে একটি শিলামিছিলকে কেন্দ্র করে যে দাঙ্গার সূত্রপাত,তাতে মারা যায় ৯৮২ জন,যার ৯৩% মুসলমান।সেইসময় পেশায় সাংবাদিক লেখক উপস্থিত সেখানে।খুঁজে ফিরছেন দাঙ্গার কারণ,হিন্দু-মুসলমানের ভূমিকা,মনোভাব,বিস্মিত হচ্ছেন পুলিশ-প্রশাসনকে দাঙ্গাবাজ হিন্দুদের পক্ষ নিতে দেখে।এ ব‌ই তাই সুখপাঠ্য মনগড়া গল্পের নয়,দাঙ্গাবিধ্বস্ত মানুষের বুকফাটা কান্না,হাহাকার,অসহায়তা মিশে আছে এর প্রতিটি পরিচ্ছেদে।আবার অপরদিকে নিজেদের জীবন দিয়ে প্রতিবেশী মুসলিম পরিবারকে বাঁচানো হিন্দু পরিবারটি আশার আলো দেখায়। বিবরণমূলক কাহিনীতে লেখকের সাংবাদিক সত্ত্বাকে বারবার ছাপিয়ে গেছে মনুষ্যত্ব।প্রায় ডায়েরীর আদলে লেখা দহন দিনের পরিষ্কার বর্ণনা অনেক ভ্রান্ত ধারণা ভাঙতে সাহায্য করে।উপরি পাওনা লেখকের একটি জ্বলন্ত কবিতা।পড়তে পড়তে একটাই অনুভূতি হয়,তা হল “লজ্জা”,হ্যাঁ, এমনই সব নারকীয় ঘটনা লুকিয়ে আছে সেই দিনগুলিতে।অসাধারণ প্রচ্ছদ ব‌ইয়ের বিষয়বস্তুর সাথে একদম মিলে যায়।ছোটো পরিসরে এমন একটি পেপারব্যাক “বোমা” এইসময়ে দাঁড়িয়ে সত্যিই প্রয়োজন ছিল।

ঠিক যতটা আলোচনা হয় আইসিস বা জামাতের ধর্মীয় গোঁড়ামি নিয়ে,তার সিকিভাগ‌ও আর‌এস‌এস নিয়ে হয় কি?অথচ,সেই বিংশ শতাব্দীর বিশের দশকে জন্মলাভ করা এই ‘হিন্দু’ জাতীয়তাবাদী সংগঠনের মূলমন্ত্র‌ই হল,”এক ‘প্রতিপক্ষ’র বিপরীতে হিন্দুদের ঐক্যবদ্ধ করা”।যে সাম্প্রদায়িক বিভেদের বীজ সেই প্রথমদিনে লাগানো হয়েছিল,তার ফলাফল নোয়াখালি দাঙ্গায়,শুধুমাত্র অনুমানভিত্তিক রামজন্মভূমিতে গড়ে ওঠা বাবরি মসজিদ ভাঙার উন্মত্ততায়,গুজরাট দাঙ্গায়,গোমাংস খাবার বা বহন করার সন্দেহে সহযাত্রীকে পিটিয়ে মেরে ফেলার হিংস্রতায়।উত্তরপ্রদেশে সব কসাইখানা বন্ধ,গোটা দেশ জুড়ে মাংসের ব্যবসা,চামড়ার ব্যবসায় যুক্ত কোটি কোটি মানুষ বেকার,যাদের একটা বড় অংশ দলিত,আদিবাসী, নিম্নবর্ণ ও মুসলমান।দলিতরা কোণঠাসা,আক্রান্ত..সংরক্ষণের মাধ্যমে যেটুকু অধিকার আদায় হয়েছিল তার‌ও পরিণতি রোহিত ভেমুলারা।
পরিস্থিতি অত্যন্ত সংকটজনক,মসনদে আর‌এস‌এস পোষক মোদী সরকার।গোমাংসজনিত বিতর্কের কারণে দেশজুড়ে দাঙ্গার পরিবেশ।মাংসের আভ্যন্তরীণ বাজার ও রপ্তানি বন্ধ হয়ে গেলে দুর্দশায় পড়বেন গরীব প্রান্তিক মানুষেরা,দুর্ভিক্ষ সময়ের অপেক্ষা।সংঘ পরিবারের উদ্দেশ্য এটাই,দাঙ্গার ছুতোয় প্রায় একশ বছর ধরে তাদের স্বপ্ন ‘হিন্দুরাষ্ট্র ভারত’ রূপায়িত করার সুযোগ তখন।ভারতীয় সংবিধান ছুঁড়ে ফেলে তার জায়গা নেবে মনুসংহিতা।ইতিমধ্যেই ধিকিধিকি আগুন জ্বলতে শুরু করেছে নানাজায়গায়,ধুলাগড়,বাদুড়িয়া যার প্রথম আলোকবিন্দু।

কি হতে পারে যদি ধর্মের বিষবাস্পে বিষিয়ে দেওয়া হয় পরস্পর প্রতিবেশীর মন?পাশের বাড়ির ফ্রিজে আমরাও হয়তো হাতড়াব গোমাংস রাখা আছে কিনা দেখতে।পেলে পিটিয়ে মারার চিন্তা করব স্ত্রী-শিশুসহ প্রতিবেশীকে।বিশ্বাস করতে শুরু করব সব মুসলমান‌ই পাকিস্তানের চর।গোমাংস খাও বলে একসাথে খেতে বসার সময় এবার ভেবে দেখতে হবে Samsul Kanta Alam দা।আমাদের “ধর্মনিরপেক্ষ” রাষ্ট্র তো এভাবেই ভাবতে শেখাচ্ছে।
ব‌ইটি থেকে কিছুটা অন্যরকম শিক্ষা নাহয় ঢুকলোই মাথায়।এই ক্রান্তিকালে দাঁড়িয়ে ব‌ইটির পুনঃপ্রকাশ কিছু মানুষকে শুভবুদ্ধিসম্পন্ন করে তুলতে সক্ষম হবে,যারা রুখে দেবে এই দাঙ্গা পরিস্থিতি,এটুকু তো আশা রাখতেই পারি।আল্লা মেহেরবান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল-এর জন্মতিথি থেকে আহমেদাবাদ ও কেভাডিয়া-র মধ্যে চালু হচ্ছে সিপ্লেন পরিষেবা

হীরক মুখোপাধ্যায় (২৮ অক্টোবর '২০):- আগামী ৩১ অক্টোবর সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল-এর জন্মতিথিকে স্মরণে রেখে আহমেদাবাদ-এর 'সবরমতী নদী' থেকে গুজরাতে অবস্থিত কেভাডিয়া-র 'স্ট্যাচু...

প্রতিবাদ দিবস পালন করতে গিয়ে তৃণমূলী দুষ্কৃতীদের আক্রমণের শিকার ভারতীয় মজদুর সংঘ-র প্রদেশ নেতৃত্ব

হীরক মুখোপাধ্যায় (২৮ অক্টোবর '২০):- কেন্দ্রীয় সরকারের শ্রমিক বিরোধী নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে আজ পূর্ব মেদিনীপুর জেলার নন্দীগ্রাম অঞ্চলে তৃণমূল কংগ্রেস...

অবস্থান বিক্ষোভ শ্রমিকদের

মলয় সিংহ, বাঁকুড়া :একাধিক দাবি দাওয়া নিয়ে বাঁকুড়ার বড়জোড়া ব্লকের হাটআসুড়িয়ায় কালিমাতা ভেপার প্রাইভেট লিমিটেড নামে রেলের যন্ত্রাংশ তৈরির কারখানার সামনে অবস্থান...

নারীর ক্ষমতায়ন:

অর্পিতা সিনহা,বাঁকুড়া(২৭অক্টোবর): বিংশ শতাব্দীর বিজ্ঞানের জয়যাত্রা পেরিয়ে একবিংশ শতাব্দীতে জ্ঞান বিজ্ঞানের আলোকে আজ আমরা অনেকটাই পরিপূর্ণতা লাভ করেছি। সভ্যতার যে অগ্রগতি ও...