Categories: কলকাতা

ভাষা দিবসেই ধিক্কার পাতিরাম-কে

ঋদ্ধি ভট্টাচার্য, কলকাতা:- পশ্চিমবঙ্গ তথা ভারতের একটি রাজ্য। তারই রাজধানী আমাদের শহর কলকাতা। কথিত আছে বাংলায় যা আঞ্চলিক বই আছে তা অন্য কোনো ভাষায় বা অন্য কোনো রাজ্যে এত রূপে কখনো বেরোয়নি। এমন মধুর ভাষার বই বিশ্বের বিভিন্ন ভাষায় ভাষান্তরিত হয়েছে।এই বিপুল বইয়ের সম্বর একমাত্র কলেজে স্ট্রিট। ঠিক তাই একটি নস্টালজিয়া জায়গা। ঐতিহ্যময় কফি হাউস থেকে কলেজ জীবনে বহু সময় কাটানো কলেজ স্কোয়ার দেখলেই চলে যেতে ইচ্ছে করে পুরোনো সেই ছেলেবেলাতে। আর বইয়ের সম্ভার বলতে সমস্ত মানুষের প্রথম আলো এই কলেজ স্ট্রিট। যদি সিনেমার মূল আঁতুরঘর হয় স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবি তবে বইয়ের মূল আঁতুরঘর হল লিটল ম্যাগাজিন। এদের যা সুন্দর চিন্তা ভাবনা ফুটে ওঠে বইয়ের মাধ্যমে তা মানুষের আগ্রহের মধ্যেই বোঝা যায়। ঠিক তেমনি বেহালা সিল্ক হাউসের ঠিক পাশেই ৫৫, কলেজ স্ট্রিট কলকাতা-৭০০০৭৩ তে দেখা যায় এক বহু পুরোনো বইয়ের সম্ভার যার নাম পাতিরাম বুক স্টোর। মূলত সারা বাংলা থেকে বেরোনো বিভিন্ন সব পত্র-পত্রিকার এক বিশাল সম্ভার এখানে। গ্রাহক প্রচুর। কিন্তু ভাষা দিবসের দিনেই যখন সবাই মেতে আছে তা উদযাপন করতে ঠিক সেই দিনেই চোখে পড়লো ওই দোকানের দুই কর্মীর অদ্ভুত ব্যবহার। এক বইপ্রেমি বই দেখতে দেখতে তার মোবাইল দেখছিল। হঠাৎ তাদের মধ্যে এক কর্মী এসে তার হাত থেকে প্রথমে বই কেরে নিলো এবং তারপর তাকে কিছু অস্রভ ভাষায় ইঙ্গিত করে ধাক্কা দিয়ে বলা হয় চলে যেতে। কিন্তু সে যখন বলে তার কারণ কি তারা বলে ওঠে বই দেখলে ছবি তোলা যাবে না। এবার প্রশ্ন তাদের দোকানের কোথাও লেখাই নেই যে বইয়ের ছবি তোলা নিষিদ্ধ। লেখার থেকেও বড় কথা তারা না যাচাই করেই একজনকে এই ভাবে কখনোই ধাক্কা দিতে পারে না বা বই নিয়ে নিতে পারে না। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের বাইরে হয় যাচ্ছে দেখে ওই লোকটা তাকে সাংবাদিক হিসেবে পরিচয়ও দেন কিন্তু তাতে আরো বেশি ফুফে ওঠে ওই কর্মীরা। ক্যামেরায় ছবি তুলতেও বাঁধা দেওয়া হয় তাকে। এবার প্রশ্ন একটাই কলেজ স্ট্রিটে হয়তো অনেকেই বই দেখে পছন্দ হলে ছবি তুলে বন্ধুদের পাঠায় হয়তো তারও সেটা লাগতে পারে আর ইন্টারনেটের যুগে এই ভাবেই হয়তো কাজ সহজ হয় যেতে থাকে। সেই পরিপ্রেক্ষিতে দাঁড়িয়ে এক ভাষা দিবসের দিনে আমাদের মাতৃভাষা বই যখন গ্রাহক দেখে তখন ভুল অভিযোগে তাকে এই রূপ হেনস্তা এবং সাংবাদিক কাজে বাধা দেওয়াকে এক প্রকার ধিক্কার জানাই। এই বিষয় সাংবাদিক-কে কিছু জিজ্ঞেস করল বললেন তিনি তার নাম প্রকাশ করতে ইচ্ছুক নয়। বরং তিনি অবাক হয় গেছেন তাদের একদা এই ব্যবহার দেখে। তার মতে আজকাল বহু মানুষ বই কিনতে ছবি তুলে হয়তো অন্যদেরকে পাঠায় সেটা যাচাই করতে। সেখানে ছবি না তুলেই এই ব্যাবহার একান্ত কাম্য নয় বললেই চলে। বরং তার পাতিরামের উপর এত দিনের একটা ভক্তি শ্রদ্ধা এক নিমেষে ধুলোয় যে মিশে গেলো তাও জানান।

Share

Recent Posts

ভাঙা বাড়িতে পরিত্যক্ত অবস্থায় ,উদ্ধার এক সদ্যজাত শিশু

সৌগত মন্ডল(বীরভূম): শিশুটাকে সালবাদরা সুলাঙ্গা ভোট ভুটকুপাড়া পাওয়া গেছে আজ সকাল ৬ টায়। সিভিক পুলিশরা খবর দেয় আশা কর্মী কে,… Read More

12 hours ago

লকডাউনে অসহায় ব্যক্তিদের পাশে কাষ্ঠগড়া স্পোর্টস এন্ড কালচারাল অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা

সৌগত মন্ডল (বীরভূম ): সারা দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। রাস্তা ঘাট থেকে শুরু করে যানবাহন দোকান সমস্ত কিছুই বন্ধ । একশ্রেণীর… Read More

1 day ago

নদিয়ায় কোয়ারেন্টাইনে থাকা যুবকের গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা

স্নেহাশীষ মুখার্জি, নদীয়া(২৯ মার্চ) : করোনা আবহে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা এক যুবকের গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হওয়ার ঘটনায় চাঞ্চল্য নদিয়ার… Read More

2 days ago

উলুবেড়িয়া উপ- সংশোধনাগারে বন্দীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ বন্ধ

অভিজিৎ হাজরা, উলুবেড়িয়া: উলুবেড়িয়া উপ-সংশোধনাগার কর্তৃপক্ষ করোনা ভাইরাস এর সতর্কতা অবলম্বনে বন্দীদের সঙ্গে বাড়ির লোকেদের দেখা করা নিষিদ্ধ করেছে। দেশে… Read More

2 days ago

এক সামাজিক মাধ্যম দাবী করছে বাজারে দেদার বিক্রি হচ্ছে ব্যবহৃত মাস্ক

হীরক মুখোপাধ্যায় (২২ মার্চ '২০):- যাঁরা এই মুহুর্তে 'কোরোনা ভাইরাস'-এর সংক্রমণ ঠেকাতে একবারের ব্যবহার উপযোগী সার্জিক্যাল মাস্ক বাজারের অনামী দোকান… Read More

1 week ago

বোমা বাঁধতে গিয়ে বোমের আঘাতে জখম এক

স্নেহাশীষ মুখার্জি, নদীয়া(২১ মার্চ ):বোমা বাঁধতে গিয়ে বোমের আঘাতে গুরুতর জখম এক তৃণমূল কর্মী। আশঙ্কাজনক অবস্থায় কলকাতা নীলরতন হাসপাতালে ভর্তি।… Read More

1 week ago