তিন তালাক আইন মানবেনা মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষ : উজমা আলম

কলকাতা

হীরক মুখোপাধ্যায় (১৭ জানুয়ারী ‘১৮):- ” কোনো অবস্থাতেই বিজেপি সরকারের তৈরী তিল তালাক আইন মানবেনা মুসলমান জনসাধারণ ৷ প্রয়োজনে শারীয়া আইন ও তালাক আইন সম্পর্কে মুসলমানদের শিক্ষিত করে কেন্দ্রীয় সরকার কৃত এই কালা আইনের বিরোধিতা করা হবে , তবুও এই আইন মানা হবেনা ” জানালেন অল ইণ্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড-এর সদস্য তথা খাওয়াতীন বেদারী তাহরিক এর মহাসচিব উজমা আলম ৷

গতকাল কলকাতা প্রেস ক্লাবে এক সাংবাদিক বৈঠক করে উজমা জানান “কোনো ধর্মীয় সম্প্রদায়ের ওপর বিবাহ বিচ্ছেদ সংক্রান্ত আইন না চাপিয়ে ,দেশ থেকে দুর্নীতি দূর করে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করাই সরকারের ধর্ম হওয়া উচিৎ ৷”

বলে রাখা ভালো , প্রত্যেক দেশেই নাগরিকদের বিবাহ ও বিবাহ বিচ্ছেদের জন্য একটা নির্দিষ্ট আইন থাকে ৷ সেই আইন সবাই মেনে চলতে বাধ্য ৷ ভারতেও এই সংক্রান্ত কতগুলো আইন আছে , যা ভারতে মুসলিম ব্যতিরেকে অন্য সম্প্রদায়েরও মেনে চলেন ৷
সম্প্রতি দেশের আইনসভা মুসলমানদের “তিন তালাক” আইনকে এই দেশে অগ্রাহ্য করে ভারতে প্রচলিত আইনগুলোর মাধ্যমে বিচার করার আইন প্রনয়ণ করায় দেশের মুসলমান সমাজ এটাকে ভালো চোখে দেখছেননা ৷

প্রসঙ্গতঃ উল্লেখয়োগ্য , মুসলিমরা বরাবরই আইনের ক্ষেত্রে দ্বিচারিতা করছেন বলে আওয়াজ তুলেছে সরকার পক্ষ ৷
সরকারি তরফ থেকে জানানো হয়েছে মুসলিম আইনে চুরি-ডাকাতি-ধর্ষণ জনিত অপরাধের ক্ষেত্রে সাজার বিধানে অনেক সময় অঙ্গহানি-র নির্দেশ রয়েছে ৷ তাই আপরাধ মূলক বিষয়ের ক্ষেত্রে মুসলিম সমাজ ভারতীয় আইনকে সমর্থন করে ৷ আবার দেওয়ানী মামলার ক্ষেত্রে ওরা বরাবরই নিজস্ব আইনের অজুহাত দেখায় ৷
আর এই আইনের বলে দিনের পর দিন নিজেদের মা-বোনেদের অপমান হজম করে ও ক্ষেত্রবিশেষে নিজেদের স্ত্রীদের কথায় কথায় তিন তালাক আইনের মাধ্যমে স্ত্রীর অধিকার থেকে বঞ্চিত করে ৷
মুসলমান সমাজের মহিলাদের সার্বিক সুরক্ষা তথা সম্মান দেওয়ার লক্ষ্যেই দেশে এই আইন প্রনয়ণ করা হয়েছে ৷ কোনো অবস্থাতেই এর থেকে সরে আসা হবেনা ৷

গতকাল সাংবাদিক বৈঠকে খাওয়াতীন বেদারী তহরিক-এর পক্ষে উজমা আলম ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সংস্থার সভাপতি কোয়াদাসিয়া আহমেদ , সম্পাদক আনোয়ার প্রেমী ৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *