10, Aug-2020 || 01:09 pm
Home বিনোদন আমন মরসুম

আমন মরসুম

রিতা মিস্ত্রী,কলকাতা :- বড়ো অ-সুখে কাটছে দিনগুলো। মহামারী আর গৃহবন্দী দশায় মানসিক ভাবে সবাই আমরা একটু হলেও বিপর্যস্ত। ব্যক্তিগতভাবে আমি বড়ো উপন্যাসে মন দিতে পারছি না, অস্থির হয়ে আছি ভেতরে ভেতরে। তাই ছোট গল্প পড়ব ঠিক করেছিলাম। প্রেমের গল্প পড়ব ঠিক করেছিলাম।
যে বইয়ের ভূমিকায় লেখক স্বয়ং বলেন, “এই কংক্রিট নগরীর রাস্তায়, উজ্জ্বল রোদের দুপুরে কিংবা নির্মেঘ গোধূলিতেও হঠাৎই সোঁদা মাটির গন্ধ পাই। ,,,, চারিদিকে আপাত উদাসীন, বৈষয়িক নারী পুরুষের বুকের ভেতর থেকেই নিশ্চিত ভাবে ভেসে আসছে সেই মাটির গন্ধ, বৃষ্টি ফোঁটার টাপুর টুপুর, জলজ সুঘ্রাণ।
মানুষের বুক আড়ালে লুকিয়ে থাকা এই পরিব্যাপ্ত আমন মরসুম আমাকে খুশি করে তোলে।বুঝতে পারি, ভালোবাসা নামের সেই আশ্চর্য অন্নকূট এর কোনো অন্ত নেই”।
‘সেই বইটাই হাতে নিয়েছি তাই। আদ্যন্ত প্রেমের গল্পের, ভালোবাসার গল্পের সংকলন, লেখক সৈকত মুখোপাধ্যায়ের লেখা ‘আমন মরসুম ‘ ।

“সমস্ত দিনের শেষে শিশিরের শব্দের মতন
সন্ধ্যা আসে; ডানার রৌদ্রের গন্ধ মুছে ফেলে চিল;
পৃথিবীর সব রঙ নিভে গেলে পাণ্ডুলিপি করে আয়োজন
তখন গল্পের তরে জোনাকির রঙে ঝিলমিল;
সব পাখি ঘরে আসে — সব নদী- ফুরায় এ-জীবনের সব লেনদেন;”(জীবনানন্দ দাশ)

সব ভালোবাসা এক একটা গল্প তৈরি করে। প্রেম যেখানে পরিণতি পায় বা পায়না সেখানেও থেকে যায় গল্প। আমরা কান পেতে শুনি না, মন দিয়ে বুঝিনা। প্রেমের চোরাবালি অস্তিত্ব হৃদয় জুড়ে তোলপাড় হতে থাকে।
দশটি বিভিন্ন মাপের ছোটগল্প এই বইয়ে। কিন্তু এখানে গতানুগতিক সনাতনী প্রেম কে ছাপিয়ে এসেছে কিছু মনস্তাত্ত্বিক প্রেমের গল্প। যে গল্প পড়ে থমকে যেতে হয়, যে গল্প পড়ে ভালোবাসার কাছে নতজানু হতে হয় সেই গল্পের কথা সবার আগে বলতে চাই। গল্পটির নাম মিতুনের জন্য’। প্রেমিকা মিতুন বিয়ে করে যাওয়ার সময় বলে গেছিলো, সে বিয়ের পর এই গঙ্গার ঘাটে এসে জলে ডুবে মরবে।কারণ তার প্রেমিকের চাকরি ছিল না, বন্ধু ছিল না, সাহস ছিল না, শুধু ভালোবাসা ছিলো, আর তাই দিয়ে বিয়ে আটকানো যায় না। মিতুন চলে গেছিলো,আর যাকে ফেলে গেছিলো সে সারা জীবন ওই গঙ্গার ঘাটে পাহারা দিতে লাগলো, যদি মিতুন মরতে আসে। আস্তে আস্তে তার বোধ গেল, তার অস্তিত্ব গেল, তার মানসিক ভারসাম্য গেল। তার সত্বা জুড়ে শুধু মিতুন আর মিতুন। আতিপাতি করে নদীর বুক খামচে দেখে সেই বুকে মিতুন নেই তো! রোজ ভোরে কেউ আসে, ততক্ষণে তার পরিচয় মুছে গেছে। কিন্তু এই খোঁজ থামে না। রোজ প্রতিনিয়ত এই বাঁচিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চলে। প্রেমের এই গভীরতা নদীর গভীরতাকে ছাপিয়ে যায়।
‘তোমারে পড়িছে মনে
আজি নীপ-বালিকার ভীরু-শিহরণে,
যুথিকার অশ্রুসিক্ত ছলছল মুখে
কেতকী-বধূর অবগুন্ঠিত ও বুকে-
তোমারে পড়িছে মনে।
হয়তো তেমনি আজি দূর বাতায়নে
ঝিলিমিলি-তলে
ম্লান লুলিত অঞ্ছলে
চাহিয়া বসিয়া আছ একা,
বারে বারে মুছে যায় আঁখি-জল-লেখা।
বারে বারে নিভে যায় শিয়রেরে বাতি,
তুমি জাগ, জাগে সাথে বরষার রাতি।'(নজরুল ইসলাম)

‘মায়াপথ ‘নামের ভেতরে যত টা ভালোবাসা ঠিক ততটাই মায়া। অসমবয়সী প্রেম সমাজে নতুন নয়, কিন্তু কবি যখন তার কমবয়সী পাঠিকা এবং প্রেমিকার আবেগকে প্রতিহত করতে রোজ এক মায়ার জাল বোনেন, হিংসা, কষ্ট, দুঃখ দিতে থাকেন এক মোলায়েম আবেশে তখন সেই প্রেমে কাম থাকে না, নিকশিত হেম থাকে। প্রেমিক কবি রচনা করতেন এক জলজ পথ,যে পথের শেষে মিলন নেই, অপার্থিব ভালোবাসা শুধু। ভালোবাসার নাম তিনি দিয়েছিলেন প্রাণ।
‘তুমি আমায় ভালবাস তাই তো আমি কবি।
আমার এ রূপ সে যে তোমার ভালোবাসার ছবি'( নজরুল ইসলাম)

শুধু গায়ের রং দিয়ে,যেখানে হৃদয়ের ব্যাপ্তি মাপা হয়, মানুষের অস্তিত্ব মাপা হয় সেখানে কষ্টের রং কী দিয়ে পরিমাপ করা যায়! কোনো ফেয়ারনেস ক্রিম কোনোদিন ত্বকের গভীরে নামতে পারেনি, ভালোবাসার রঙে মেলানিন থাকেনা, তাই গল্পের নাম ‘বেদনার রং’। গল্পের শেষ টুকুতে চোখ ছল ছল করে ওঠে, মন আর্দ্র হয়।
প্রেম ভেঙে যাওয়ার পরও যে মেয়ে যায় প্রতিশ্রুত সোনালী পলাশের খোঁজে বা যে উন্মাদ আমৃত্যু একমনে এঁকে যায় প্রেমিকার চোখ সেই অচরিতার্থ প্রেম আজও ভালোবাসার স্বপ্ন দেখার সাহস যোগায়।

এমন ভালোবাসায় ভরিয়ে দেয় ‘চোখের তারায়’, ‘টাইগার মথ’ বা ‘রইলো অভিমান’ নামের গল্পগুলো। এমন অপ্রেমের দিনে, এমন একাকিত্বের দিনে এই প্রেমের গল্পের বই আমায় মুগ্ধ করলো।
লেখককে ধন্যবাদ এমন সৃষ্টির জন্য। আরো এমন গল্প পড়ার অপেক্ষায় রইলাম।
ক্যাফে টেবিলের প্রকাশনা, প্রিন্টিং, বাঁধাই খুব সুন্দর, নিখুঁত, পরিপাটি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

প্রতিবন্ধী ক্রীড়াবিদদের সম্মান জানাতে এসভিএফের সহায়তায় মিউজিক ভিডিও বানালো টাটা স্ট্রাকচুরা

হীরক মুখোপাধ্যায় (৮ অগস্ট '২০):-দেশের প্রতিবন্ধী ক্রীড়াবিদদের সম্মান জানাতে 'শ্রী ভেঙ্কটেশ ফ্লিমস' (এসভিএফ)-এর সহায়তায় মিউজিক ভিডিও বানালো 'টাটা স্ট্রাকচুরা'।

অল্প বৃষ্টিতে জলমগ্ন টাকী পৌর এলাকার বিভিন্ন রাস্তা,লকডাউনের জন্যই থমকে কাজ, দ্রুত মেরামতি র আশ্বাস পৌর প্রশাসকের

সৌরভ দাশ,হাসনাবাদ: ভারি মালপত্র বহনকারী গাড়ি থেকে প্রতিনিয়ত প্রচুর মানুষের যাতায়াত, ছোট বড়ো যানবাহনের লাগামহীন চলাচল কার্যত স্থবির করে দিয়েছে টাকীর রাস্তা...

“জাতীয় শিক্ষানীতি ২০২০” প্রণয়নের প্রতিবাদে পুরুলিয়ায় সপ্তাহব্যাপী বিক্ষোভ আন্দোলন

বাপ্পা রায়, পুরুলিয়া:- নতুন শিক্ষা নীতি ঘোষণা করেছেন কেন্দ্রীয় সরকার। তারই প্রতিবাদে এ দিন "জাতীয় শিক্ষানীতি ২০২০" প্রণয়নের প্রতিবাদে পুরুলিয়ায় সপ্তাহব্যাপী বিক্ষোভ...

পুরুলিয়ায় তৃণমূল কংগ্রেস যোগদান

বাপ্পা রায়,পুরুলিয়া:- শুক্রবার পুরুলিয়া বিধানসভার হুটমুড়া অঞ্চলের বিজেপির ৪০টি পরিবার , এবং কংগ্রেসের ৫ টি পরিবার তাদের দল ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেস যোগদান...